Uncategorized

নির্ভয়া মামলা আর মুকেশ সিং

hqdefaultপ্রত্যাশিতভাবেই চারদিকে বিস্তর জলঘোলা হতে শুরু করেছে নির্ভয়া মামলায় অভিযুক্ত মুকেশ সিং-এর বিবৃতি নিয়ে। আমি নারীবাদী নই। পুরূষবাদী-ও নই। হয়তো এই লেখাটা লিখে আমি অনেক মহিলার বিরাগভাজন হব, তবুও লিখছি কারণ দোষটা পুরো ব্যক্তি-মুকেশের ঘাড়ে চাপাতে পারছিনা। দোষ আমাদের দেশের পিছিয়ে পড়া সামাজিক ব্যবস্থা, একটা নির্দিষ্ট সমাজের পারিবারিক upbringing এবং অর্থনীতি। জটিল করে দিলাম ব্যাপারটা ? সহজ করে বোঝাচ্ছি দু একটা উদাহরণ দিয়ে।

ধরুন আপনি jungle safari-তে গেছেন অথবা নৌকাবিহার করছেন। জঙ্গলে বাঘ আছে, জলে কুমির আছে। এখন মাটি/জলের ওপর বাঘ/কুমিরের মত ‘আমারও সমান জন্মগত অধিকার’ বলে আপনি কি পদব্রজে জঙ্গল ঘুরবেন/কুমির ভরা জলে সাঁতার কাটবেন ? না, তাই তো ? ঠিক তেমনি আপনার strategy আপনার হাতে। Marilyn Monroe’র “The body is meant to be seen. Not all covered up” বাণীতে উদ্বুদ্ধ হয়ে অনেক মেয়েরাই স্হান-কাল-পাত্র বিবেচনা না করে খোলামেলা পোশাক পরতে থাকেন। এটা যে আমাদের ভারতবর্ষ যেখানে maximum rapist-রা যে community-তে belong করে সেখানে বাড়ীর মেয়েরা ঘোমটা ছাড়া পথে বেরোননা + শুধু ঘরোয়া কাজকর্ম + সন্তান উৎপাদনেই সারাজীবন কাটাতে বাধ্য হন সেখানে আবাল্য -শৈশব-কৈশোর কাটিয়ে যৌবনে পা রাখা পুরূষগুলি ছোটখাটো চাকরির তাগিদে যখন metro city গুলোতে rapist ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়ার আগে আসেন তখন বাইরে মহিলা চাকরি/পড়াশোনা করতে যাচ্ছে + সূর্য ডোবার পরেও বাইরে ঘুরছে এহেন দৃশ্যে আশ্চর্য হন বই কী। তদুপরি স্বল্প পোশাক পরিহিতা মহিলা দেখে তাদের অবস্থা হয় অনেকটা Alice in the wonderland-এর মত। তাই তারা সহজেই ধরে নেন ২০% মহিলাই ভাল, বাদবাকি সব খারাপ (as stated by Mukesh)। খারাপ মেয়েদের সাথে ইচ্ছে হলেই শোওয়া যায় – তাতে পৌরুষে গ্লানি লাগেনা। To some extent, provocation বলা যায়। তবে আপাদমস্তক ঢাকা দেওয়া মহিলারা/ ছোট ছোট শিশুরা/ নিজের বাড়ীতেই আত্মীয়দের হাতে molested হওয়া অবশ্যই cold blooded crime যেখানে victim totally innocent.

এখন victim তো বাধা দেবেই কারণ ব্যাপারটি তার সম্মতিক্রমে হচ্ছেনা। এটা woman psychology. এদিকে বারবার বাধাপ্রাপ্ত হলে আনন্দটি ঠিক জমেনা- তাই এমন কিছু কর যাতে আনন্দে কোন বিঘ্ন না ঘটে। অতএব victim কে মেরে মেরে আধমরা কর এবং কাজ হয়ে গেলে পুরো মেরে ফেল – এটা criminal psychology. সেটা মুকেশ ভাবছে কারণ সে ছোটবেলা থেকেই এরকম social set up দেখে বড় হয়েছে। আজ একজন মুকেশ মৃত্যুদন্ড পাচ্ছে তো একশো মুকেশ হরিয়ানা/উওরপ্রদেশের প্রত্যন্ত গ্রামে জন্মাচ্ছে। শিক্ষা আনে মূল্যবোধ। মূল্যবোধ আনে সামাজিক সচেতনতা। যতদিন না পর্যন্ত শিক্ষা অণু পরমাণুতে মিশে যাচ্ছে ততদিন পর্যন্ত এই সমস্যার সমাধান নেই।

Advertisements
Standard

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s